করোনা পরবর্তী বিবাহ প্রস্তুতির ১৪ টি পরামর্শ

করোনা পরবর্তী বিবাহ প্রস্তুতির ১৪ টি পরামর্শ

২০২০ সালটা আমাদের জন্য আসলে অনেক বেশিই চ্যালেঞ্জের হয়ে যাচ্ছে । যতই দিন যাচ্ছে পরিস্থিতি ততই ঘোলাটে মনে হচ্ছে । করোনা মহামারিতে সারা বিশ্বব্যাপী ব্যাপক আক্রান্ত ও প্রাণহানিতে সকল দেশইও বিপর্যস্ত। প্রায় ৬ মাস যাবত এই মহামারির ব্যাপক গতিবিধি পরিবর্তিত হয়েছে । সকল দেশে সব মানুষ তার দৈনন্দিন জীবন থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। এর পাশাপাশি সকল ধরনের আর্থিক ও সামাজিক কার্যক্রম এখন স্থগিত ।

করোনার আগে অনেকের বিবাহের অনেক ধরনের প্রস্তুতি থাকলেও এখন তা সবই বন্ধ। আমরা আশা করতে পারি হয়ত ২-৩ মাস পরে আমাদের পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হবে। তখন হয়ত সীমিত পরিসরে বিবাহের কার্যক্রম আবার শুরু করা অনুমতি সরকারের কাছ থেকে মিলতে পারে। যেহেতু, সকল কিছুই বর্তমানে স্থগিত তাই আমরা এখন অনেক কিছু চিন্তা করে আগিয়ে রাখতে পারি।

যেমন,

১. করোনার কারনে আমাদের সকলেরি এখন আয় উন্নতির গ্রাফটা এখন নিচের দিকে। অনেকের চাকরি চলে গেছে, অনেকের বেতন কেটে রাখা হচ্ছে, অনেক জায়গায় হোম অফিস করছি। আর যারা ব্যবসা করতেন তাদের অনেকেরি এখন ব্যবসা মন্দা বা প্রায় বন্ধ। আপনার বর্তমানের জীবিকা আপনার বিবাহের অন্যতম চাবিকাঠি। তাই বর্তমানে যে অবস্থায় আছেন, তাকে সে অবস্থা থেকে দ্রুত উন্নতি করতে হবে বা একটা ব্যাকআপ প্ল্যান তৈরী করতে হবে। এই বিষইয়টি আপনাকে বিয়ের বাজারে অনেকটুকু এগিয়ে রাখবে।

২. এখন যেহেতু সংক্রমনের হার আগের থেকে অনেক বেশি তাই স্বাস্থ্য ঝুকির বিষয়টি সবার আগে ভাবা উচিত। যদি বিয়ে ঠিক হয়ে থাকে, তাহলে হয়ত কাবিন বা ঘরোয়া পরিবেশে বিবাহের আয়োজন করাটা কিছুটা যুক্তিযুক্ত । কিন্তু এতে আছে অনেক ধরনের ঝুকি। সামাজিক দূরত্বের বিষয়টি এখানে খেয়াল রাখা খুবই জরুরী। যদিও তা অনেক ক্ষেত্রে সম্ভব না। দুই পরিবাব্রের সম্মতি থাকলে, এখন অনলাইনে আপনি বিয়ের কাজটি সেরে ফেলতে পারেন। হয়ত পরিস্থিতি আরেকটু স্বাভাবিক হলে অনুষ্ঠান করার চিন্তা করতে পারেন।

৩. যেহেতু এখন বিকালের পর হোটেল বা চাইনিজ রেস্তোরা খোলা থাকে না, চাইলে দিনের বেলায় অনুষ্ঠান সেরে নিতে পারেন। হোটেল বুকিং এর ক্ষেত্রে খুবই সতর্কতা পালন করা জরুরী।

৪. যদিও দেশেকে করোনামুক্ত ঘোষনা করা হয় তাও উচিত আপনাদের সকলের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা। কারন আপনার পরিবারের বৃদ্ধ ও শিশুরা সব থেকে বেশি ঝুঁকির মাঝে আছেন। কেউই এর থেকে নিরাপদ না। তাই, এদের প্রতি বেশি খেয়াল রাখুন আপনার করোনা পরবর্তী বিবাহের ক্ষেত্রে।

৫. যেহেতু অনেকদিন ব্যবসা বন্ধ ছিল । তাই হয়ত আপনার বিয়ের সকল প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম বেড়ে যাবে। এই ক্ষেত্রে আপনি চাইলে ক্রেডিট কার্ডের কিস্তিতে কিনতে পারেন। যদি একদমই কিছু করার না থাকে তাহলে হয়ত অনেক কিছুই আপনার কেনাকাটা থেকে বাদ পড়বে। হয়ত ওই শখটা জীবনের অন্য কোন সময়ের জন্য তোলা থাক।

৬. করোনা পরবর্তী বিয়ের প্রস্তুতির জন্য দুই পরিবারের সকল বিষয়ে একমত হওয়া খুবই জরুরী। দুই পরিবারের সকল সদস্যদের যত একত্রিত রাখতে পারবেন ততওই আপনার বিয়ের ঝামেলা কম হবে।

৭. যেহেতু, সবাই এখন স্বাস্থ্য ঝুকির মাঝে আছি। বিয়ের পরের হানিমুনের বিষয়টি এড়িয়ে যাওয়াই ভালো। হানিমুনের টাকা এফডিয়ার করে রেখে দিন। পরে না হয় ভালো কোন সময় দেখে ঘুরে আসলেন কোথাও।

৮. অযথা সকল বাড়তি খরচ থেকে নিজেকে দূরে রাখুন।

৯. একটা ডায়রির মাঝে সকল জিনিসগুলো লিস্ট করে রাখুন যাতে কোন বাড়তি কিছু যোগ হয় না বা কোন কিছুর ভুল না হয়।

১০. এই দুর্যোগের মুহূর্তে নিজের কাছে টাকা থাকাটা অনেক বেশি জরুরী। নিজের কাছে থাকা টাকা, পাওনাদারদের কাছ থেকে টাকা তোলার দিকে আপনাকে বেশি মনোযোগ দিতে হবে।

১১. বিয়ের পর দৈনন্দিন খরচের জন্য একটা টাকার অংশ আলাদা করে রাখা এখন এ অবস্থায় খুব জরুরি।

১২. যেহেতু করোনা পরবর্তী সময়ে আগের মত সকল বিষয়গুলো থাকবে না। তাই নিজেদের মাঝে এই বিষয়গুলো ভালোভাবে বুঝে নিতে হবে। পাশাপাশি আপনি ঘরের মাঝে পরিবারের সকল সদস্যদের জন্য আলাদা করে বিনোদনের ব্যবস্থা করুন।

১৩. বিয়ের খাবারের জন্য অবশ্যই আপনাকে এখন আরো কঠিনভাবে স্বাস্থ্য সচেতন হতে হবে। ভালো হয় পরিবারের কোন দায়িত্বশীল সদস্যের উপস্থিতিতে এই কাজটি সমাধান করা।

১৪. যেহেতু সংক্রমনের ঝুকি বেশি, তাই আত্মীয়-স্বজনদের বাসায় আসা বা যাওয়ার খুব একটা দরকার নেই। আর কিছুদিন অপেক্ষা করলে হয়ত আমরা এসব ঝামেলা থেকে মুক্তি পাবো খুব শীঘ্রই।

সম্ভব হলে নিজেদের দুই পরিবার এবং খুব কাছের কয়েকজন কে নিয়ে বিয়ে সম্পন্ন করুন অথবা বিয়ের খরচ ভেবে সেই টাকা দান করে দোয়া নিয়ে নতুন সংসার শুরু করতে পারেন। তবে এতে দুই জনের সম্মতি জরুরি যা মনে অন্য রকম শান্তি যোগ করবে।

তাই আসুন এখন থেকে করোনা পরবর্তী বিবাহ প্রস্তুতির সকল ক্ষেত্রে আমরা খুবই মিতব্যয়ী হই। স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলি। নিজের ও নিজের পরিবারের সকল সদস্যের খেয়াল রাখি। আশা করি খুব দ্রুতই আমরা আমাদের সুখের দিন ফিরে পাব।

Comments
No comment yet